আমরা অনেকেই প্রয়োজনের তাগিদে আকাশ পথে যাত্রা করে থাকি। অনেক সময় আমাদের শারীরিক সমস্যার কারণে এই যাত্রা সুখকর হয়ে ওঠে না। আর আকাশ পথে বা বিমানে যাত্রায় অনেকের অনেক রকম সমস্যা দেখা দেয় যেমন মাথা ঘোরানো, বমি বমি ভাব কিংবা পেট ব্যাথার মতো অসস্তি।অনেকের আবার অনিদ্রা ও ভার্টিগোর মতো সমস্যা দেখা দেয়। এই সমস্যা গুলো হওয়ার মুল কারণ হলো বায়ুর চাপ। মুলত বিমান যখন আকাশে থাকে তখন সেখানে বায়ুর চাপ অনেক কম থাকে তাই শরীরে বিভিন্ন পরিবর্তন দেখা দেয়। যার ফলে অনেক যাত্রীর ই নানা ধরনের সমস্যা দেখা দেয়। আর এই সমস্যা বাড়িয়ে দেয় কিছু খাবার। অনেকেই আছেন যাত্রা আরামদায়ক করার জন্য কিংবা এয়ারপোর্টের আশেপাশের মুখোরোচক খাবারের দোকান দেখে বিমানে যাত্রার আগে কিছু খেয়ে নেন। কিন্তু পুষ্টিবিদের মতে এইরকম কিছু খাবার আপনার যাত্রা পথের অস্বস্তি বাড়িয়ে তুলতে পারে। তাই চলুন জেনে নেয়া যাক বিমানে ওঠার আগে যেসব খাবার না খাওয়াই ভালো সেগুলো কি কি?

ফাস্টফুড বা জাংকফুড

আমরা সবাই জানি ফাস্টফুডে অত্যাধিক তেলমশলা, চিজ ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়।যা পাকস্থলীতে গ্যাস সৃষ্টি করে। তাই বিমানে ওঠার আগে ফাস্টফুড জাতীয় খাবার না খাওয়া উত্তম। নয়তো বিমানে ওঠার পর শরীর খারাপ লাগবে,বুক জ্বালা পোড়া করবে এবং পেট ফাপার মতো সমস্যা দেখা দেবে।

চিপস ও প্যাকেট জাত সল্টেড বাদাম

চিপস ও প্যাকেটজাত সল্টেড বাদাম খুব মুখোরোচক খাবার। এগুলো বিমানবন্দর এর মতো জায়গায় বেশ সহজলভ্যও বটে।কিন্তু এই খাবার গুলোতে বেশি পরিমাণে টেস্টিং সল্ট ব্যবহার করা হয় যা গ্যাসের সমস্যা সৃষ্টি করে।তাই বিমানযাত্রার পুর্বে এসব খাবেন না।

বিনস বা বীজ জাতীয় খাবার 

বিনস বা বীজ জাতীয় খাবার গুলো হাই ফাইবার সমৃদ্ধ। আপাত দৃষ্টিতে এসব অত্যন্ত উপকারী খাবার হলেও, বিনসে থাকা কিছু ফাইবার সহজে হজম হতে চায় না। তাই বিমানে ওঠার আগে বিনস বা বীজ জাতীয় খাবার গুলো না খাওয়া ভালো। এতে বদ হজম হওয়ার সম্ভবনা থাকে।

আপেল

আপাত দৃষ্টিতে আপেল খুবই উপকারী একটি ফল। এতে পানির পরিমাণ বেশি হলেও আপেল হাই ফাইবার যুক্ত ফল।হাই ফাইবার সহজপাচ্য উপাদান নয়।যার ফলে হাই ফাইবার যুক্ত খাবার গ্যাস, বদ হজম ও কোষ্ঠকাঠিন্যর মতো সমস্যা তৈরি করে। তাই বিমানে ওঠার আগে আপেল খাবেন না, এমনকি আপেলের জুস ও না। এতে অস্বস্তি হতে পারে। 

ব্রোকলি বা কপি গোত্রের সবজি সমুহ 

ব্রোকলি এবং কপি গোত্রের সবজি গুলো একেকটি হাই নিউট্রিয়েন্ট ও ভিটামিন সমৃদ্ধ সবজি। কিন্তু এই সবজি গুলো পেটে গ্যাসের  সমস্যা তৈরি করতে পারে।তাই বিমানে উঠার আগে নিজের খাবারের তালিকায় ব্রোকলি বা কপি জাতীয় খাবার রাখবেন না।এর বদলে অন্য কোনো হালকা খাবার বা অন্য কোনো সেদ্ধ সবজি খেতে পারেন।

কফি ও কোমল পানীয়

কফি একটি ক্যাফেইন সমৃদ্ধ পানীয়। যা ঘুম ভাব কাটাতে, সতেজতা নিয়ে আসতে এবং ঠান্ডার দিনে শরীর থেকে ঠান্ডা ভাব কাটাতে কফির জুড়ি নেই।কিন্তু আপনি জানেন কি ফ্লাইটে ওঠার আগে কফি পান করা উচিৎ না। কারণ কফির মধ্যে থাকা ক্যাফেইন  শরীর থেকে পানি শোষন করে শরীরে পানি শুণ্যতা সৃষ্টি  করে। এতে মাথা ঘোরা কিংবা অস্বস্তি লাগার মতো সমস্যা হয়।একই বিষয় গুলো ঘটে চা এবং কোমল পানীয় পান করলেও। তাই বিমানে ওঠার আগে চা, কফি, কোমল পানীয় পান করা থেকে বিরত থাকুন।

সুতরাং একটি আরামদায়ক বিমান যাত্রার পুর্বে উপরে উল্লেখিত খাবার গুলো খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।এসবের পরিবর্তে  নিজের পেট কে স্বস্তি দিতে লেবুর শরবত, কমলার জুস কিংবা ডাবের পানি পান করুন। আর খাবারের মধ্যে রাখুন হালকা সেদ্ধ সবজি, রুটি বা কলা,পেপে,আম, আনার  জাতীয় ফল এবং আপনার বিমান ভ্রমণ করুন স্বস্তিদায়ক।

ভ্রমণ গাইড নিয়ে আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *